বাগমারায় উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বন্ধ করা জরুরী - দৈনিক বাগমারা
রবিবার , ১৪ জানুয়ারি ২০২৪ | ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. চাকরি
  7. জাতীয়
  8. জীবনযাপন
  9. তথ্য ও প্রযুক্তি
  10. ধর্ম
  11. বাগমারা উপজেলা
  12. বিনোদন
  13. রাজনীতি
  14. শিক্ষা ও ক্যাম্পাস
  15. সম্পাদকীয়

বাগমারায় উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বন্ধ করা জরুরী

প্রতিবেদক
Dainik Bagmara
জানুয়ারি ১৪, ২০২৪ ৯:৪৪ পূর্বাহ্ণ

সহিংসতা কোন ভাবেই উন্নয়নের পথ হতে পারে না। বিশ্বে এমন কোন দেশ খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে সহিংসতা করে উন্নয়ন নিশ্চিত করা গেছে। সহিংসতা মানেই ক্ষতি। সেই সম্ভব্য ক্ষতির পথ কোন সময় শান্তির দিকে নিয়ে যেতে পারে না। সমঝোতা, সহমর্মিতা, একতা, সংগবদ্ধ অবস্থানই পারে একটা জাতি, ধর্মবর্ণ, দেশ এমনকি পৃথিবীকে শান্তিময় করতে। শান্তি এবং উন্নয়ন চাইলে সেই জায়গায় পৌঁছাতে হবে আমাদের। মুষ্ঠিমেয় কিছু লোকজনের হুটকারী চিন্তা আগামীর স্বর্ণিল সকালকে অন্ধকারে নিমজ্জিত করতে পারে। সেখান থেকে আমাদের হেঁটে আসতে হবে। মনের অজান্তে ঘটে যাওয়া সামান্য একটা ভুল নিভিয়ে দিতে পারে কারো জীবন প্রদীপ। কথায় বলে ‘এক হাতে তালি বাজে না’। উন্নয়নের স্বার্থে রক্তমাখা তালি বাজানো বন্ধ করা সকলের কাম্য। সকল হিংসা-প্রতিহিংসা ভুলে আগামীর সকালকে সাদরে গ্রহণ করি। এই কথাগুলো মূলত বলার কারণ হচ্ছে গত ৭ জানুয়ারী দেশ ব্যাপি অনুষ্ঠিত হয়ে গেল দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনের দিন সারাদেশে কিছু বিশৃংখলার ঘটনা সৃষ্টি হলেও শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে নির্বাচন বলা চলে। নির্বাচন শেষ হতে না হতে সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহণ। প্রধানমন্ত্রী সহ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের শপথ এবং তাদের মাঝে দায়িত্বভার ন্যস্ত করা হয়েছে। দেশের উন্নয়ন ধারা চলমান রাখতে দ্রুত সময়ে সকল কার্যক্রম শেষ করেছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যা দূরদর্শিতার পরিচয় বহন করে।

দেশের উন্নয়ন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরই মধ্যে বিস্তর পরিকল্পনা শুরু করেছেন। সকল প্রতীকূলতা ডিঙ্গিয়ে “স্মার্ট বাংলাদেশ”র পথে যাত্রা করছে। সেখানে রাজশাহীর বাগমারায় নির্বাচন পরবর্তী সময়ে এসে দেখা যাচ্ছে, উপজেলা জুড়ে দাউ দাউ করে জ¦লছে প্রহিসংরার আগুন। এটির সূত্রপাত মূলত প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত ঘিরে। একই দলের দুই প্রার্থী অর্থাৎ দলীয় প্রতীক দেয়ার পরও সারাদেশে ডামি বা স্বতন্ত্র প্রার্থী রাখা। সে ক্ষেত্রে কে দিবে দলীয় প্রার্থীকে সমর্থন আর কে থাকবে স্বতন্ত্রের দিকে। বাগমারায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয় মোট ৬ জন প্রার্থী। ৬ জন অংশ নিলেও জনপ্রিয়তায় সংঘাত সৃষ্টি হয় দুই প্রার্থী মধ্যে। দলীয় প্রার্থী নৌকা আর স্বতন্ত্র প্রার্থী কাঁচি প্রতীকের কর্মী সমর্থকদের মধ্যে। নির্বাচনকালীন সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা লেগেই ছিল বলা চলে। ওই সব ঘটনায় বেশ কয়েকটি মামলা সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ পড়েছে অগণিত। এমনকি নির্বাচনের আগের দিন নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে নির্বাচন কর্মকর্তা। যা ইতোপূর্বে কোন দিন ঘটেনি বাগমারায়। নির্বাচন কালীন এবং পরবর্তী সময়ে যে হামলা, ভাংচুর, মারপিট সহ হুমকী-ধমকীর ঘটনা ঘটছে তাতে কিন্তু আক্রান্ত হচ্ছে বাগমারার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সাধারণ মানুষ। যারা দিন আনে দিন খায়। মারপিটের ভয়ে উভয় পক্ষের অনেক সাধারণ কর্মী সমর্থক বাসগৃহ ছাড়া অন্যত্র অবস্থান করছেন। নির্বাচন পরবর্তী সময়ে এসে যেটি চোখে পড়ে সেটি হচ্ছে যারা বা যে পক্ষ জয়লাভ করে তারাই শক্ত অবস্থানে থাকে। পক্ষান্তরে যে পক্ষ পরাজিত হয় সে পক্ষের ঘাড়ে চাপে বিজয়ীদের বোঝা। সে কারনে সর্বদায় নানা ভাবে অত্যাচারের শিকার হতে হয় পরাজিতদের। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন থেকে গত এক সপ্তাহে নানা ভাবে হামলা, মারপিট বাড়ি ঘর ভাংচুর, জোর পূর্বক পুকুর থেকে মাছ মারা, বিল দখল এবং হুমকি ধমকীর নানা ঘটনা। প্রথমত নির্বাচনের দিন শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের অনিল কুমারের মোড়ের নাম ফলক তুলে পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নে হামলার শিকার হতে হয়েছে আব্দুল কুদ্দুসকে।

শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের বারুইপাড়া গ্রামে কাঁচি প্রতীক এর পক্ষে থাকায় রুবিনা, গিয়াস উদ্দিন সহ মোজাম্মেল এর বাড়ি ভাংচুর করা হয়। সেই সাথে মকছেদ মাস্টার সহ বেশ কয়েকজনকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। বাসুপাড়া ইউনিয়নের বালানগর গ্রামে কাঁচি প্রতীক এর সমর্থক আকরাম, জুয়েল, রেজাউল হক সহ কয়েকজনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে মারপিট করা হয়েছে। এছাড়াও হামলার ভয়ে অনেক নেতাকর্মী বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। একই সাথে বাসুপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান এর বাড়িতে হামলার পাশাপাশি তার চাষকৃত বিলে জোর পূর্বক দখলের চেষ্টায় নেমেছে। এছাড়াও একই ইউনিয়নের বীরকয়া গ্রামের আকরামের বাড়িতে ব্যাপক ভাবে হামলা বাড়িঘর সহ পাওয়ার টিলার ভেঙে নষ্ট করে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি স্থানে পরাজিত প্রার্থীর পক্ষের কর্মী সমর্থকদের উপর হামলা চালানো হয়।

অন্যদিকে নির্বাচন পরবর্তী সময়ে শ্রীপুর ইউনিয়নের মজিদপুর গ্রামের আতিকুর রহমান স্বপনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ক্ষতি সাধন করা হয়। এছাড়াও একই গ্রামের আব্দুর রশিদ, ইমন, পলাশ সহ অনেকে মারপিট করে। সেই সাথে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলায় চালিয়ে আব্দুর রাজ্জাক নামের এক যুবকের হাত,পা ভেঙ্গে দেয়ার পাশাপাশি পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। এছাড়াও গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে, এরমধ্যে চেউখালী গ্রামের ব্যবসায়ী বাবুল হোসেন, একডালা গ্রামের আয়ুব আলী, সাহাবুর, সমোসপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম এর চা স্টলে হামলা করে ভেঙে দেয়ার পাশাপাশি মারপিট করা হয়েছে। একই এলাকার মহিলা মেম্বার মুঞ্জুয়ারা, সমোসপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ, আতাউর রহমান, চেউখালী গ্রামের জেসমিন এর বাড়িতে হামলা করে ভাংচুর চালায়। সেই সাথে কাপড় ব্যবসায়ী রমজানের দোকান ভাংচুর করে এবং দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়া সহ পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে কনোপাড়া গ্রামের মকছেদ আলীর দীঘিতে জাল নামিয়ে মাছ মেরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাও শোনা গেছে। হামিরকুৎসা ইউনিয়নে বেশ কয়েক জনকে মারপিট করা হয়েছে বলেও খোঁজ পাওয়া গেছে। ঝিকরা ইউনিয়নে ভোটের দিন মাহিদুল ইসলাম নামে এক ভোটারকে কেন্দ্রে যাওয়ার পথে রাস্তার মারপিটের শিকার হতে হয়েছে। সেই সাথে আব্দুর রাজ্জাকের গোয়ালঘর সহ খড়ির ঘরে আগুন দেয়া হয়। সেউজবাড়ি এলাকার এচাহাক, জামাল সহ অনেককে চড়থাপ্পড় মারার ঘটনা ঘটেছে। গতশনিবার আউচপাড়া ইউনিয়নের কোন্দা গ্রামে হোসেনের চাস্টলে হামলা চালিয়ে সবকিছু ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। পাশাপাশি অন্যান্য ইউনিয়নে ছোটখাট অনেক হামলা, ভয়ভীতি সহ হুমকী-ধমকীর ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। এমন ঘটনায় আইন শৃংখলার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা বেশ কিছু স্থানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। প্রতিটি মানুষ কোন না কোন ব্যক্তি বা দলকে সমর্থন করে। প্রতিটি জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব বিভেদ ভুলে সংঘর্ষে না জড়িয়ে উন্নয়ন ও শান্তির পথে হাটা। সংঘর্ষ কোন সমাধানের পথ দেখাতে পারে না। তাই আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি সংঘাত নয়, শান্তি ও উন্নয়নের পথ খুঁজি।

লেখকঃ শামীম রেজা

Facebook Comments Box

সর্বশেষ - বাগমারা উপজেলা

আপনার জন্য নির্বাচিত

বাগমারায় ইজারাদার ও ব্যবসায়ীদের আপত্তি সত্ত্বেও হাটের জায়গায় চলছে স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ!

সেই ইউএনও সুবোল বোস মনি বাগমারায় এলেন বেড়াতে

বাগমারায় বিদ্যুৎ কর্মীদের সাথে অপ্রীতিকর ঘটনায় মামলা, বৈধ অবৈধ শতাধিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন

বাগমারায় নৌকার প্রার্থী কালামের সমর্থকদের হামলায় এনামুল হকের ব্যক্তিগত সহকারি সহ আহত ৪

বাগমারায় বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু

সরকার উৎখাতের আন্দোলন করে লাভ নেই লোকজনের কাছে গিয়ে ভোট চানঃ এমপি এনামুল হক

বাগমারায় মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন শৃংখলা বাহিনীকে নির্দেশ

বাগমারায় ভবানীগঞ্জ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের পক্ষ থেকে এমপি এনামুল হককে শুভেচ্ছা

গঠনতন্ত্র বিরোধী বক্তব্য দেয়ায় এমপি কালামকে কারণ দর্শানো নোটিশ

বাগমারার হামিরকুৎসায় শহীদ মিনারের ভিত্তিস্থাপন

x
error: Content is protected !!